সোমবার, ০৪ মার্চ ২০২৪, ২০ ফাল্গুন ১৪৩০
কালবেলা ডেস্ক
প্রকাশ : ২২ মে ২০২৩, ০৯:৪৬ এএম
প্রিন্ট সংস্করণ

সুনির্দিষ্ট কারণ জানায়নি আরবিআই

বাজার থেকে সর্বোচ্চ মূল্যের নোট প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত নিয়েছে ভারতের কেন্দ্রীয় ব্যাংক রিজার্ভ ব্যাংক অব ইন্ডিয়া (আরবিআই)। গত শুক্রবার এ ঘোষণা আসে। ২০১৬ সালে ২ হাজার রুপির নোট চালু হয়েছিল। এর আইনি দরপত্র থাকলেও আগামী ৩০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে এ নোটগুলো ব্যাংকে জমা বা বিনিময় করতে বলা হয়েছে। এ সিদ্ধান্ত ২০১৬ সালে ভারত সরকারের নেওয়া এক আকস্মিক পদক্ষেপের কথা মনে করিয়ে দেয়। ওই বছরের ৮ নভেম্বর নরেন্দ্র মোদি সরকার রাতারাতি বাজারে প্রচলিত ৮৬ শতাংশ মুদ্রা প্রত্যাহার করে নিয়েছিল। তবে এবারের পদক্ষেপটি কম বিঘ্নজনক হবে বলে আশা করছেন বিশেষজ্ঞ ও অর্থনীতিবিদরা। তাদের মতে, এবার নোট প্রত্যাহারের জন্য ভারতীয়রা পাচ্ছেন লম্বা সময়। আর বিষয়টি দেশের জন্যও অর্থবহ।

এখন প্রশ্ন আসে—সরকার ২ হাজার রুপির নোট তুলে নিচ্ছে কেন? রয়টার্স বলছে, ২০১৬ সালে নোট বাতিলের পর ভারতের অর্থনীতিতে দ্রুত নতুন মুদ্রা চালু করাই ছিল মূল উদ্দেশ্য। এরপর থেকে আরবিআই বলছে, তারা উচ্চমূল্যের নোট কমাতে চায়। সে অনুযায়ী, চার বছর ধরে ২ হাজার রুপির নোট ছাপানোও বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। আরবিআই এ নোট তুলে নেওয়ার ব্যাখ্যায় বলেছে, সাধারণ লেনদেনে এর ব্যবহার হয় না। তবে এখনই এ সিদ্ধান্ত কেন হলো, সে বিষয়ে কোনো ব্যাখ্যা দেয়নি আরবিআই। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, রাজ্য ও কেন্দ্রীয় নির্বাচনের আগে নগদের ব্যবহার বেড়ে যায়।

এলঅ্যান্ডটি ফাইন্যান্স হোল্ডিংসের প্রধান অর্থনীতিবিদ রুপা নিৎসার বলেন, সাধারণ নির্বাচনের আগে এ ধরনের পদক্ষেপ গ্রহণ একটি বিজ্ঞ সিদ্ধান্ত। তবে যারা এ নোট মজুত হিসেবে ব্যবহার করছেন, তারা অসুবিধায় পড়তে পারেন।

ভারতের বাজারের ১০ দশমিক ৮ শতাংশ ২ হাজার রুপির নোটের দখলে। নিৎসারের মতে, আরবিআইর সিদ্ধান্তে কোনো বড় ব্যাঘাত সৃষ্টি হবে না। আর গত ছয়-সাত বছরে ডিজিটাল লেনদেন ও ই-কমার্সের পরিসর বেড়েছে উল্লেখযোগ্য হারে। কোয়ান্টইকো রিসার্চের অর্থনীতিবিদ যুবিকা সিংঘলের ভাষ্য, স্বল্পমেয়াদে অসুবিধায় পড়তে পারে কৃষি, নির্মাণের মতো ক্ষুদ্র ব্যবসা ও নগদভিত্তিক খাত। এখন অনেকের হাতেই রয়েছে ২ হাজার রুপির নোট। এসব নোট ব্যাংক হিসাবে জমা না দিয়ে স্বর্ণের মতো পণ্য কিনতে পারেন তারা, বলেন সিংঘল। ৩০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে নোটগুলো ব্যাংকে জমা বা বিনিময়ের পরামর্শ দিয়েছে সরকার। ফলে ভারতীয় ব্যাংকগুলোর আমানত বাড়বে। আর এ সিদ্ধান্ত এমন এক সময় এলো, যখন দেশটির ব্যাংকগুলোয় আমানত বৃদ্ধির হার ঋণের তুলনায় পিছিয়ে। এতে আমানত বৃদ্ধির হারে চাপ কমবে বলে মনে করেন রেটিং এজেন্সি ইকরা লিমিটেডের ফিন্যান্সিয়াল খাত রেটিং প্রধান কার্তিক শ্রীনিবাস। ব্যাংক ব্যবস্থায়ও তারল্য বাড়বে। এমকে গ্লোবাল ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিসেসের অর্থনীতিবিদ মাধবী অরোরার মতে, ২ হাজার রুপির সব নোট ব্যাংক ব্যবস্থায় ফিরবে। তাই এটি এ ব্যবস্থায় তারল্য উন্নত করতে সহায়তা করবে।

এদিকে যুবিকা সিংঘলের অভিমতের সত্যতা মিলেছে। ইকোনমিক টাইমস জানিয়েছে, নোট বদলের বিপরীতে ভারতীয়রা স্বর্ণ কিনছেন। তবে এ জন্য প্রিমিয়াম বা অতিরিক্ত দাম দিতে হচ্ছে। জিএসটিসহ স্বর্ণের দর ৬৩ হাজার ৮০০ রুপি হলেও শনিবার মুম্বাইয়ে অনানুষ্ঠানিক বাজারে ২ হাজার রুপির নোট ব্যবহার করে ১০ গ্রাম কিনতে ব্যয় হয় ৬৭ হাজার রুপি। বাড়তি অর্থ ক্রেতাদের কাছ থেকে প্রিমিয়াম হিসেবে নেওয়া হচ্ছে।

কালবেলা অনলাইন এর সর্বশেষ খবর পেতে Google News ফিডটি অনুসরণ করুন
  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

ঘুষ-দুর্নীতির আখড়া জাজিরার বড়কান্দি ইউনিয়ন ভূমি অফিস

মীন রাশিতে কাজে সফল হওয়ার দিন আজ

২৭ ফেব্রুয়ারি : নামাজের সময়সূচি

মঙ্গলবার রাজধানীর যেসব এলাকায় যাবেন না

কী ঘটেছিল ইতিহাসের এই দিনে

প্যারিসে ভাষা দিবস উপলক্ষে পঞ্চ কবির গানের সন্ধ্যা

বাবাকে কুপিয়ে জখম, ছেলে গ্রেপ্তার

আধিপত্য বিস্তারে দুই গ্রুপের ককটেল বিস্ফোরণ, আহত ৩

পথ হারানো ৩১ দর্শনার্থীকে উদ্ধার করল পুলিশ

শিক্ষা সফরে মদপান, দুই শিক্ষক সাময়িক বরখাস্ত

১০

মিয়ানমারে সরকার গঠন করতে যাচ্ছে বিদ্রোহীরা!

১১

রাতের ঢাকায় নতুন মাদক

১২

বাংলাদেশ অলিম্পিক এসোসিয়েশন এর কার্যনির্বাহী কমিটির সভা অনুষ্ঠিত

১৩

রংপুরকে উড়িয়ে ফাইনালে লিটনের কুমিল্লা

১৪

যুগান্তরের অবদান চির স্মরণীয় হয়ে থাকবে

১৫

ভিকারুননিসার শিক্ষক মুরাদ গ্রেপ্তার

১৬

যৌন হয়রানির অভিযোগে ভিকারুননিসা শিক্ষকের বিরুদ্ধে মামলা

১৭

করোনায় আক্রান্ত ডিবি প্রধান হারুন

১৮

‘বঙ্গবন্ধু বিচ’ নামকরণের প্রস্তাব বাতিল

১৯

বর্ণাঢ্য আয়োজনে চবি ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের নবীনবরণ

২০
X