রবিবার, ০৩ মার্চ ২০২৪, ১৯ ফাল্গুন ১৪৩০
রফিকুল ইসলাম, রংপুর
প্রকাশ : ১২ মার্চ ২০২৩, ০৯:৫০ এএম
প্রিন্ট সংস্করণ

তিস্তা চরের মিষ্টিকুমড়া সিঙ্গাপুরে

‘বাপের দেওয়া ১২ বিঘা জমি আছিল, সেই জমিতে কয়েক বছর চাষাবাস করছি। নদী ভাঙতে ভাঙতে চোখের সামনে সউগ পানিতে ভাসি গেইছে। একনাও জমি নাই, মানসের জাগাত বাড়ি করি বউ বাচ্ছা নিয়ে আচনোং। যে নদীত মোর ১২ বিঘা জমি, সেই নদীত এ্যালা বালু আর বালু। সেই বালু এখন হামার কপাল খুলি দিসে। এবার মিষ্টিকুমড়ে আবাদ করছি ৪৫ বিঘা মাটিত। ৫ লাখ ৫০ হাজার খরচ করছি, এখন পর্যন্ত বেচাইছি ১০ লাখ ৫০ হাজারের মতো। আরও অমন ৫ লাখ বিক্রি করমো।’ কথাগুলো বলছিলেন রংপুরের গংগাচড়া উপজেলার ঘজঘণ্টা এলাকার মিষ্টিকুমড়া চাষি আনোয়ারুল ইসলাম। মিষ্টিকুমড়া চাষে যার স্বপ্ন ধরা দিয়েছে হাতের মুঠোয়। সহায়-সম্বলহীন থেকে হয়েছেন স্বাবলম্বী।

জানা গেছে, রংপুরের তিস্তা নদীবেষ্টিত ২৬টি বড় চর রয়েছে। এর মধ্যে পাঁচটি চরে আবাদ হচ্ছে বিভিন্ন জাতের মিষ্টিকুমড়া। চরাঞ্চলের শত শত পরিবার কুমড়া চাষে সচ্ছলতা এনেছে। প্রথমবারের মতো রংপুর থেকে সরাসরি মালয়েশিয়া ও সিঙ্গাপুরে মিষ্টিকুমড়া রপ্তানি শুরু হওয়ায় আশার আলো দেখছেন তিস্তার চরাঞ্চলের নদী ভাঙনকবলিত মানুষ ও ব্যবসায়ীরা।

কৃষি বিভাগ জানিয়েছে, রংপুরের কাউনিয়া ও গংগাচড়া উপজেলায় এবার ৯৮১ হেক্টর চরে মিষ্টিকুমড়ার চাষ হয়েছে। এর মধ্যে গংগাচড়া উপজেলায় ৯৬৩ আর কাউনিয়া উপজেলা ১৮ হেক্টর রয়েছে। দেখা গেছে, তিস্তার বিস্তীর্ণ ধু-ধু বালু চরে হচ্ছে মিষ্টিকুমড়ার চাষ। নদীভাঙনে সর্বস্ব হারানো মানুষজন ঝুঁকে পড়ছেন এই আবাদে। কেউ জমি পরিচর্যায় ব্যস্ত, কেউ জমি থেকে তুলছেন কুমড়া, কেউ সেই কুমড়া প্রস্তুত করছেন বিক্রির জন্য। কৃষকরা জানান, ১ শতক বালু চরে মিষ্টিকুমড়া উৎপাদন হয় প্রায় আড়াই মণ। সে হিসেবে ১ একর বা ১০০ শতকে উৎপাদন হয় ২৫০ মণ।

কৃষক আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, ছয় মাসের জন্য অন্যের জমি বখরা নিছি। একদোনে ৩ হাজার টাকা দেওয়া লাগবে। কিছু টাকা লাভের ওপর নিছি, কিছু কিস্তির ওপর আর কিছু টাকা সংসার থেকে টান দিচি। সার কিটনাশক বাকি নিছি, এখন সেগুলো পরিশোধ করতেছি। তাও লাখ দুয়েক টাকা টেকপে (মুনাফা)। এইভাবে গত পাঁচ বছর থাকি মানসের জমিত আবাদ করিয়ে একনা জমি কিনছি, বাড়ি করছি। ছৈলপৈল নিয়ে ভালো আছি।

নুরুল ইসলাম বলেন, আমি কুমড়ে গাড়ছি দশ দোন, খরচ গেইছে ৬০ হাজার টাকা। আর এখন পর্যন্ত বিক্রি করছি ১ লাখ ২০ হাজার টাকা। আরও না হলেও লাখ টাকা বিক্রি করব। এবার একটু রেট ভালো।

চরের কৃষকরা বলছেন, এসব কৃষিপণ্য আনা-নেওয়ার জন্য যোগাযোগ ব্যবস্থা উন্নত হলে কৃষকের জন্য কষ্ট কম হবে। তারা আরও লাভবান হবেন।

চরের বাসিন্দাদের উৎপাদিত মিষ্টিকুমড়া মালয়েশিয়া ও সিঙ্গাপুরে রপ্তানি হচ্ছে। রংপুর এগ্রো লিমিটেডের মালিক হাবিবুর রহমান জানান, গত ৩৫ দিনে ২০০ টন মিষ্টিকুমড়া সিঙ্গাপুর ও মালয়েশিয়ায় রপ্তানি করা হয়েছে। সবচেয়ে বেশি যাচ্ছে মালয়েশিয়ায়।

তিনি বলেন, প্রতিটি মিষ্টিকুমড়া আলাদাভাবে সাদা কাগজে মুড়িয়ে একটি বস্তায় ২০ কেজির প্যাকেট করা হয়। সেই বস্তা কেনা হয় ৫৪০ টাকায়। আমার এবার ৫০ কোটি টাকার ওপরে রপ্তানির ইচ্ছা আছে।

রংপুর চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির সভাপতি মোস্তফা সোহরাব চৌধুরী টিটু বলেন, এটি খুবই ভালো খবর। এই কুমড়া সংরক্ষণ এবং আরও ব্যাপকভাবে রপ্তানি করা যায়, সে বিষয়ে আমরা কাজ করব।

সুইজারল্যান্ড ভিত্তিক আন্তর্জাতিক বেসরকারি সংস্থা সুইচকন্ট্রাক বাংলাদেশ নামে একটি সংস্থায় চরের মানুষ এবং কৃষি নিয়ে কাজ করেন মো. আনোয়ারুল ইসলাম। তিনি বলেন, আমরা এই চরের মানুষদের সুসংগঠিত করছি, চরের জমিতে চাষ করতে প্রয়োজনীয় সব সহযোগিতা দিয়েছে।

কালবেলা অনলাইন এর সর্বশেষ খবর পেতে Google News ফিডটি অনুসরণ করুন
  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

ঘুষ-দুর্নীতির আখড়া জাজিরার বড়কান্দি ইউনিয়ন ভূমি অফিস

মীন রাশিতে কাজে সফল হওয়ার দিন আজ

২৭ ফেব্রুয়ারি : নামাজের সময়সূচি

মঙ্গলবার রাজধানীর যেসব এলাকায় যাবেন না

কী ঘটেছিল ইতিহাসের এই দিনে

প্যারিসে ভাষা দিবস উপলক্ষে পঞ্চ কবির গানের সন্ধ্যা

বাবাকে কুপিয়ে জখম, ছেলে গ্রেপ্তার

আধিপত্য বিস্তারে দুই গ্রুপের ককটেল বিস্ফোরণ, আহত ৩

পথ হারানো ৩১ দর্শনার্থীকে উদ্ধার করল পুলিশ

শিক্ষা সফরে মদপান, দুই শিক্ষক সাময়িক বরখাস্ত

১০

মিয়ানমারে সরকার গঠন করতে যাচ্ছে বিদ্রোহীরা!

১১

রাতের ঢাকায় নতুন মাদক

১২

বাংলাদেশ অলিম্পিক এসোসিয়েশন এর কার্যনির্বাহী কমিটির সভা অনুষ্ঠিত

১৩

রংপুরকে উড়িয়ে ফাইনালে লিটনের কুমিল্লা

১৪

যুগান্তরের অবদান চির স্মরণীয় হয়ে থাকবে

১৫

ভিকারুননিসার শিক্ষক মুরাদ গ্রেপ্তার

১৬

যৌন হয়রানির অভিযোগে ভিকারুননিসা শিক্ষকের বিরুদ্ধে মামলা

১৭

করোনায় আক্রান্ত ডিবি প্রধান হারুন

১৮

‘বঙ্গবন্ধু বিচ’ নামকরণের প্রস্তাব বাতিল

১৯

বর্ণাঢ্য আয়োজনে চবি ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের নবীনবরণ

২০
X