মৃত্তিকা সাহা
প্রকাশ : ২৪ মে ২০২৩, ১০:০২ এএম
প্রিন্ট সংস্করণ

আমদানিতে স্বস্তি, কমছে ঋণপত্র খোলা-নিষ্পত্তি

আমদানিতে স্বস্তি, কমছে ঋণপত্র খোলা-নিষ্পত্তি
অভ্যন্তরীণ অর্থনীতির স্থিতিশীলতার প্রশ্নে দেশে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ সুরক্ষিত রাখতে আমদানি নিয়ন্ত্রণে বাংলাদেশ ব্যাংকের কড়াকড়ি আরোপের বিস্ময়কর সাফল্য পাওয়া গেছে। অর্থাৎ ডলারের ঘাটতি ঝুঁকি এড়ানো সম্ভব হয়েছে। বহুমুখী এই নিয়ন্ত্রণমূলক পদক্ষেপের ফলে আমদানিতে একদিকে কমেছে ঋণপত্র (এলসি) খোলার প্রবণতা এবং নিষ্পত্তির হার। অন্যদিকে ঠেকানো গেছে বাণিজ্যের আড়ালে অর্থ পাচারের মতো ঘটনাও। যার সুফল ধরা দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ হিসাবে। আগে প্রতি মাসে গড়ে ৭ বিলিয়ন ডলারের পণ্য আমদানি হতো, এখন কমে সেটি সাড়ে ৪ বিলিয়নে এসেছে। কমে যাওয়া এই আড়াই বিলিয়নের মধ্যে এক বিলিয়ন তৈরি পোশাক খাতের মেশিনারিজ আমদানি এবং বাকি দেড় বিলিয়নের অধিকাংশই ওভার ইনভয়েসিং হতো, যা এখন কমে এসেছে। এতে করে ডলারের ওপর বিগত সময় সৃষ্ট চাপও কিছুটা কমেছে। বাংলাদেশ ব্যাংকের হালনাগাদ প্রতিবেদন থেকে আরও জানা গেছে, গত দশ মাসে (জুলাই-এপ্রিল) আমদানিতে ঋণপত্র খোলার পরিমাণ কমেছে প্রায় ২৭ শতাংশ কম। আর একই সময়ে ঋণপত্র নিষ্পত্তি কমেছে প্রায় ৮ শতাংশ। এ সময় সবচেয়ে বেশি কমেছে মূলধনি যন্ত্রপাতি, মধ্যবর্তী পণ্য, পেট্রোলিয়াম, শিল্পের প্রয়োজনীয় কাঁচামাল আমদানি। বর্তমান অভ্যন্তরীণ ও বৈশ্বিক প্রেক্ষাপটে আমদানি কমাকে দেশের অর্থনীতির জন্য ‘মঙ্গল’ হিসেবে দেখছেন অর্থনীতিবিদ ও ব্যাংকাররা। তারা বলেছেন, এই মুহূর্তে এটারই খুব দরকার ছিল। আমদানি কমলে ডলারের বাজারও স্বাভাবিক হয়ে আসবে। আমদানি ব্যয় কমার কারণ হিসেবে ব্যাংকাররা বলছেন, এক্ষেত্রে সমচেয়ে বড় ভূমিকা রেখেছে বাংলাদেশ ব্যাংকের নিয়ন্ত্রণমূলক পদক্ষেপ। গত বছরের ১৭ এপ্রিল এক সার্কুলারের মাধ্যমে কেন্দ্রীয় ব্যাংক শিশুখাদ্য, জ্বালানিসহ অত্যাবশ্যকীয় খাদ্যপণ্য, জীবন রক্ষাকারী ওষুধ, স্থানীয় ও রপ্তানিমুখী শিল্প এবং কৃষি খাত-সংশ্লিষ্ট পণ্য আমদানি ছাড়া অন্য সব পণ্য আমদানির বিপরীতে ঋণপত্র স্থাপনের (এলসি) নগদ মার্জিন হার ন্যূনতম ২৫ শতাংশ সংরক্ষণের জন্য ব্যাংকগুলোকে নির্দেশ দেওয়া হয়। এরপর ১০ মে বিলাসপণ্য আমদানি কমাতে ক্ষেত্রবিশেষে শতভাগ নগদ মার্জিন সংরক্ষণের নির্দেশ দেয় বাংলাদেশ ব্যাংক। এর পাশাপাশি ডলারের চাপ কমাতে ব্যয় সংকোচনের পথ বেছে নেয় সরকার। অতি প্রয়োজন ছাড়া সরকারি কর্মকর্তাদের পাশাপাশি রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংক-আর্থিক প্রতিষ্ঠান ও বিশেষায়িত প্রতিষ্ঠানের কর্তাদেরও বিদেশ সফর বন্ধ ঘোষণা করা হয়। কম গুরুত্বপূর্ণ আমদানিনির্ভর প্রকল্পের বাস্তবায়নও আপাতত বন্ধ রাখা হয়। এতে আমদানির প্রবণতা কমেছে। এটি ডলারের ওপর চাপ কমিয়েছে। বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভকে সুরক্ষিত করেছে। মূলত রিজার্ভ সুরক্ষিত থাকায় বাংলাদেশ এ যাত্রায় বৈশ্বিক অস্থিরতার মধ্যেও অভ্যন্তরীণ অর্থনীতিতে ‍স্থিতিশীলতা ফেরাতে সক্ষম হয়েছে। সবচেয়ে বড় বিষয় হলো—এসব কারণে বড় ব্যবসায়ীদের বাণিজ্যের আড়ালে অর্থ পাচারও প্রতিরোধ করা সম্ভব হয়েছে। এ বিষয়ে অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকার্স বাংলাদেশ লিমিটেডের (এবিবি) চেয়ারম্যান সেলিম আর এফ হোসেন বলেছেন, বাংলাদেশ ব্যাংকের আমদানি নিয়ন্ত্রণ সংক্রান্ত নানামুখী পদক্ষেপের কারণে একদিকে বাণিজ্যের আড়ালে টাকা পাচার বন্ধ করা সম্ভব হয়েছে, অন্যদিকে অবাধ পণ্য আমদানি ঠেকানো গেছে। এতে ডলার সাশ্রয় হয়েছে। দেশ চাপমুক্ত হয়েছে। ফলে অর্থনীতিও স্থিতিশীলতার মধ্যে আছে। বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতিবেদনে দেখা যায়, চলতি অর্থবছরের প্রথম ১০ মাসে (জুলাই-এপ্রিল) আমদানির জন্য মোট ৫৬ দশমিক ৩৬ বিলিয়ন ডলারের এলসি খোলা হয়েছে। আগের অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় যা প্রায় ২৭ শতাংশ কম। সেইসঙ্গে অর্থবছরের প্রথম ১০ মাসে এলসি নিষ্পত্তি হয়েছে ৬২ দশমিক ৪০ বিলিয়নের, যা আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় প্রায় ৮ শতাংশ কম। প্রতিবেদন অনুযায়ী, একক মাস হিসেবে গত এপ্রিলে মাত্র ৪ দশমিক ৪৮ বিলিয়নের আমদানি এলসি খোলা হয়। যা আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় এটি ৪৯ শতাংশ কম। এরচেয়ে কম এলসি খোলা হয়েছিল ২০২০ সালের আগস্টে। করোনার কারণে দেশের অর্থনীতিতে তখন কিছুটা স্থবিরতা থাকায় ৩ দশমিক ৭০ বিলিয়নের এলসি খোলা হয় সে সময়। এ ছাড়া এপ্রিলে এলসি নিষ্পত্তি হয়েছে ৪ দশমিক ৬৯ বিলিয়ন ডলার। এর আগে ২০২১ সালের জুলাই মাসে এলসি নিষ্পত্তি হয়েছে ৪ দশমিক ৬৫ বিলিয়ন ডলার। প্রতিবেদন পর্যালোচনায় আরও দেখা গেছে, অর্থবছরের প্রথম ১০ মাসে সবচেয়ে বেশি কমেছে মূলধনি যন্ত্রপাতি আমদানি। আলোচ্য সময়ে এই খাতে এলসি খোলা হয়েছে ২ দশমিক ৪৪ বিলিয়ন ডলার, যা গত বছরের একই সময়ে ছিল ৫ দশমিক ৬৮ বিলিয়ন ডলার। সেই হিসেবে মূলধনি যন্ত্রপাতি আমদানিতে এলসি খোলার পরিমাণ কমেছে ৫৬ দশমিক ৯১ শতাংশ এবং নিষ্পত্তি কমেছে ১৬ দশমিক ৮৩ শতাংশ। একই সময়ে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের আমদানিও অনেকাংশে কমে গেছে। এর মাধ্যমেই বোঝা যায়, যে ডলারের সংকট এখনো পুরোপুরি কাটেনি। এ সময় নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য আমদানিতে এলসি খোলা কমেছে ১৮ দশমিক ১৯ শতাংশ। আর নিষ্পত্তি কমেছে ১১ দশমিক ৭০ শতাংশ। এ সময় মধ্যবর্তী পণ্যের আমদানিতে এলসি খোলা কমেছে ৩১ দশমিক ৩৯ শতাংশ। আর নিষ্পত্তি কমেছে ২৪ শতাংশ। সেই সঙ্গে শিল্পের কাঁচামাল আমদানিতে এলসি খোলা কমেছে ৩১ দশমিক ৮৫ শতাংশ আর নিষ্পত্তি কমেছে ৯ দশমিক ৫৬ শতাংশ। জানা গেছে, চলতি বছরের এপ্রিল থেকে আমদানি ব্যয় অস্বাভাবিক হারে বাড়ছে। কিন্তু সেই তুলনায় বাড়ছে না রপ্তানি আয় এবং রেমিট্যান্স। ফলে বড় অঙ্কের বাণিজ্য ঘাটতিতে পড়েছে দেশ। সংকট সৃষ্টি হয় মার্কিন ডলারের। বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভও কমে আসে। অর্থনীতির এমন উদ্বেগ-উৎকণ্ঠার মধ্যে আমদানির লাগাম টানতে নানা শর্ত দেয় সরকারের সংশ্লিষ্ট বিভাগ ও বাংলাদেশ ব্যাংক। যার প্রভাবে চলতি অর্থবছরের প্রথম ১০ মাসে (জুলাই-এপ্রিল) ধারাবাহিকভাবে কমছে আমদানিতে ঋণপত্র (এলসি) খোলা এবং নিষ্পত্তির পরিমাণও। এর ফলে ডলারের সংকটও অনেকটা কেটে গেছে বলেও জানিয়েছেন ব্যাংকাররা।

কালবেলা অনলাইন এর সর্বশেষ খবর পেতে Google News ফিডটি অনুসরণ করুন
  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

শিক্ষার্থীদের কর্মসূচি নেই, ক্যাম্পাস খোলার দাবি

বিএনপির মদদ ও জামায়াত-শিবিরের পরিকল্পনায় ধ্বংসংযজ্ঞ : প্রধানমন্ত্রী

পুলিশের তিন সদস্য নিহত, আহত ১১১৭ : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

বাজারে নিত্যপণ্যের সংকট নেই : বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী

দূরপাল্লার বাস চলবে

নতুন ভাড়াটিয়াদের তথ্য দিতে অনুরোধ ডিএমপি কমিশনারের 

২৪ জুলাই : নামাজের সময়সূচি

সীমিত পরিসরে খোলা থাকবে ব্যাংক, লেনদেন ৪ ঘণ্টা

সবাই ঐক্যবদ্ধ থাকলে সমস্যা কাটিয়ে ওঠা সম্ভব : আহসান খান চৌধুরী

লন্ডন থেকে তারেক রহমানের নির্দেশে হামলা চালানো হয় : হারুন

১০

রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সেনাপ্রধানের সাক্ষাৎ

১১

কারখানা চালু থাকলে শ্রমিকরা ভেতরে নিরাপদ থাকবে : বিকেএমইএ সভাপতি

১২

কোটা ইস্যু আরও আগেই সমাধান করা যেত : ইসলামী ছাত্র আন্দোলন

১৩

শিল্প-কলকারখানা খুলে দেওয়ার আহ্বান : নাসিম মঞ্জুর

১৪

কবে থেকে চলবে যাত্রীবাহী ট্রেন, জানা যাবে বুধবার

১৫

আইডি কার্ডই হবে পোশাকশ্রমিকদের কারফিউ পাস

১৬

এটি একটি অর্গানাইজড ক্রাইম : বিএবি চেয়ারম্যান

১৭

জাহাজ ভাঙা শিল্পে শীর্ষে যেতে পারে বাংলাদেশ : নরওয়ে রাষ্ট্রদূত

১৮

পরিস্থিতি পুরোপুরি স্বাভাবিক হওয়ার অপেক্ষায় রাজধানীবাসী

১৯

শৈলকুপা উপজেলা আ.লীগ সভাপতিকে হত্যাচেষ্টা

২০
X