মো. জামাল আহমেদ, ভৈরব
প্রকাশ : ২৫ মে ২০২৩, ০৯:১৩ এএম
প্রিন্ট সংস্করণ

দরজা-জানালায় কোটির কারবার

দরজা-জানালায় কোটির কারবার

কিশোরগঞ্জের ভৈরবের মেঘনা নদীর পাড় ঘেঁষে গড়ে উঠেছে ভৈরব বাজার। সড়ক ও নদীপথে যোগাযোগ ব্যবস্থা ভালো হওয়ায় ক্রেতা-বিক্রেতাদের কাছে এ বাজারের গুরুত্বও অন্যরকম। দেশের আর দশটা বাজারের মতো স্থানীয়দের নিত্যপণ্যের চাহিদা মেটানোর পাশাপাশি এ বাজারের রয়েছে আরেকটি বিশেষত্ব। ভৈরব বাজারে যেসব পণ্যের ব্যবসা হয়, তার মধ্যে অন্যতম পুরোনো দরজা ও জানালা। সেগুন, আকাশি, লোহা, কাঁঠালসহ বিভিন্ন ধরনের কাঠের ও স্টিলের দরজা-জানালা বাজারমূল্যের প্রায় অর্ধেক দামে পাওয়া যায় এখানে।

জানা গেছে, প্রায় ৫০ বছর ধরে ভৈরব বাজারের টিনপট্টি ও কাঠপট্টিতে চলছে পুরোনো

দরজা-জানালার কারবার। ঢাকা, চট্টগ্রাম, সিলেটসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে ভেঙে ফেলা বিল্ডিং,

বাসাবাড়ি কিংবা অফিসের পুরোনো দরজা-জানালা কিনে এখানে নিয়ে আসেন ব্যবসায়ীরা। এরপর সেগুলো ধুয়ে-মুছে ও প্রয়োজনীয় মেরামতের মাধ্যমে বিক্রির উপযোগী করে তোলেন স্থানীয় শ্রমিকরা।

ব্যবসায়ীরা জানান, সাধারণত গামারি কাঠ দিয়ে দরজা তৈরি করলে এতে খরচ হয় প্রায় ১৪-১৫ হাজার টাকা। বিপরীতে এ বাজার থেকে একই কাঠের পুরোনো দরজা নিলে খরচ হয় ৬-৭ হাজার টাকা। আবার বার্মাটিকস সেগুন কাঠের দরজা তৈরিতে লাগে ৫০-৬০ হাজার টাকা। সেটাই তাদের কাছ থেকে নিলে খরচ পড়ে ১৫-১৬ হাজার টাকা। দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে ক্রেতারা পুরোনো দরজা-জানালা কিনতে আসেন এখানে। এতে দিন দিন বাড়ছে ব্যবসার পরিধি। এ ছাড়া কম দামে

দরজা-জানালা পেয়ে খুশি ক্রেতারাও। সড়ক ও নদীপথে খুব সহজে এবং কম খরচে দরজা-জানালা নিয়ে যেতে পারেন তারা। ব্যবসায়ীদের পাশাপাশি এলাকার নিম্ন ও মধ্যবিত্তরাও সামর্থ্য অনুযায়ী দরজা-জানালা কেনেন এখান থেকেই।

বর্তমানে বাজারটিতে এমন দোকানের সংখ্যা ১৫-২০টি। এসব দোকানে আকার ভেদে একেকটি দরজা বেচাকেনা হয় ৫ হাজার থেকে ৫০ হাজার টাকায়। আর জানালাপ্রতি বিক্রি হয় ১ হাজার টাকা থেকে ৩ হাজার টাকায়। খরচ বাদ দিয়ে প্রতিটি দুই পার্টের দরজা বিক্রি করে ব্যবসায়ীদের লাভ হয় ৫০০ থেকে ২ হাজার টাকা। আর এক পার্টের দরজায় লাভ হয় ১ হাজার থেকে ২ হাজার টাকা। প্রতিবছর অন্তত ১২-১৫ হাজার পিস পুরোনো দরজা-জানালা বেচাকেনা হয় এ বাজারে। সে হিসাবে বছরে প্রায় ১৫-২০ কোটি টাকার বেচাকেনা হয় এসব দোকানে।

এই বাজারে পুরোনো দরজা-জানালার ব্যবসার সঙ্গে প্রায় ২০ বছর ধরে যুক্ত আছেন হাজি মুছা মিয়া। তিনি জানান, আমাদের এখানে সরাইল, কুলিয়ারচর, রায়পুরা ও হবিগঞ্জ এলাকা থেকে লোকজন আসে এই দরজা-জানালা নিতে। এর কারণ এখানকার দরজা-জানালা মানে ভালো, দামেও সাশ্রয়।

ভৈরব চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির সভাপতি আলহাজ হুমায়ুন কবির বলেন, এ বাজারে দীর্ঘদিন ধরেই সুনামের সঙ্গে পুরোনো দরজা-জানালার ব্যবসা চলছে। বছরে প্রায় ১৫-২০ কোটি টাকার বেচাকেনা হয় এখানে। পুরোনো এসব দরজা-জানালার ব্যবসার কারণে অনেক মানুষের কর্মসংস্থানও হয়েছে।

কালবেলা অনলাইন এর সর্বশেষ খবর পেতে Google News ফিডটি অনুসরণ করুন
  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

ধর্ষণ মামলায় রায়হান গ্রেপ্তার

ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন ইতালিকে হারিয়ে শেষ ষোলোতে স্পেন

নারায়ণগঞ্জ জেলা পরিষদের দুই প্রকৌশলীর আর্থিক লেনদেনের ভিডিও ভাইরাল

কামাল লোহানীর পঞ্চম প্রয়াণ দিবসে উদীচীর স্মরণ সভা

রাসেলস ভাইপার মারলেই ৫০ হাজার টাকা পুরস্কার

ভিজিএফের চাল আত্মসাতের অভিযোগে আ.লীগ নেতার বিরুদ্ধে মামলা

নারী নির্যাতন মামলায় চেয়ারম্যান কারাগারে

ডেনমার্কের বিরুদ্ধে ইংল্যান্ডের হতাশার ড্র

বাংলাদেশের সব অর্জন আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে : পলক

আফগানদের হারিয়ে সুপার এইটে শুভ সূচনা ভারতের

১০

চুরি করতে গিয়ে ছাত্রলীগ নেতা ধরা

১১

মজুদদারদের বিরুদ্ধে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের বিধান রেখে নতুন আইন হচ্ছে : খাদ্যমন্ত্রী

১২

ডিমলায় বুড়ি তিস্তা নদীর বাঁধে ভাঙন, পানিবন্দি ২ শতাধিক পরিবার

১৩

রাসেল ভাইপার নিয়ে ফেসবুকে ভুয়া পোস্ট ভাইরাল, জনমনে আতঙ্ক

১৪

ঈদের ছুটিতে ছিলেন অফিসে, মিলল লাশ

১৫

ল্যাবএইডে দিনে ৭০টির বেশি এন্ডোসকপি, অস্বাভাবিক বলছেন বিশেষজ্ঞরা

১৬

প্রকাশ্যে মদ খেয়ে মাতলামি, জেলে গেলেন যুবক

১৭

ওসির কেরামতিতে মায়ের কোলে ‍ফিরল শিশু

১৮

পৃথিবীর সবচেয়ে ভয়ংকর ১০ সাপ, বসবাস যেসব এলাকায়

১৯

বন্যায় ঈদ আসেনি সিলেটের নিম্নাঞ্চলে

২০
X